অন্য রকম এক মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক : বর্তমান যুগটা বড়ই যান্ত্রিক। এ যুগে মানুষ বড় আত্মকেন্দ্রিক। সবাই নিজের জগৎ নিয়ে ব্যস্ত হওয়ায় অন্যকিছু নিয়ে ভাবার সময় নেই। মানুষ যেন ভুলে গেছে মান্নাদের সেই বিখ্যাত গান -মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য। সৃষ্টির মাঝেই ষ্রষ্টা বিরাজমান।

সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টিকে ভালবাসলেই স্রষ্টার নৈকট্য লাভ করা সম্ভব। স্বার্থপর পৃথিবীতে নিজের স্বার্থ ছেড়ে অপরের জন্য কিছু করা এমন মানুষ পাওয়া ভার। এমন কঠিন ব্যস্তবতায়ও কিছু মানুষ থাকে যাঁদের জন্যই বোধকরি আমরা এগিয়ে যাবার উৎসাহ পাই সামনে চলার আলো দেখতে পাই। তেমনি একজন আলোকিত মানুষ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।
কিছু না লিখলে যেমন সাদা কাগজের মূল্য থাকে না, ঠিক তেমনি ব্যক্তির জীবনে মনুষ্যত্ব বা গুন প্রকাশ না হলে তার প্রকৃত মানুষত্ব প্ররকাশ পায় না। মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ যার হৃদয, কাজ, চেহারা, ব্যক্তিত্ব অতুলনীয়। হৃদয়টা হচ্ছে শিশুতুল্য সহজসরল, স্নেহ-ভালোববাসায় পূর্ণ। স্বার্থ ছাড়া অতি পরিশ্রমী, অসহায় মানুষের পাশে থাকাই হচ্ছে তাঁর কাজ । আর যদি চেহারার কথা বলি, তাহলে বলবো হাজারো লোকের মাঝেও আমি তাঁর মিল পাইনি । সাধারন পোশাক-আশাক পড়েই তিনি একজন সুন্দর ব্যক্তিত্বের অধিকারী। তিনি একজন প্রকৃত সুখী

অদম্য ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন । আর দিনের কর্মকান্ডের শেষে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা জানিয়েছেন চোখের জল দিয়ে । তাঁর একটাই বিশ্বাস যে সৃষ্টিকর্তা সব জানেন, তিনি কাউকে নিরাশ করেন না । আর এই প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে চলছেন তিনি । মহামারী করোনার সংক্রামন ঠেকাতে একরকম যুদ্ধঘোষণা করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। যখন করোনা উপসর্গ কিংবা এ ধরনের রোগীর পাশে কেউ ছিল না সেটা মুসলমান আর হিন্দু যেই হোক না কেন তার পাশে ছিলেন খোরশেদ।
জানা যায়, প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং কাউন্সিলর ও মহাগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। মানুষকে সচেতন করা থেকে শুরু করে যাবতীয় কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন তিনি। দল মত. ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্যই একজন নিবেদিত মানুষ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির পরেই প্রথমবারের মত হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে আলোচনায় আসেন খোরশেদ। ক্যামিস্ট বন্ধুদের সহযোগিতায় উপকরণ ক্রয় করে ৩০ হাজার হ্যান্ড স্যানিটাইজার যখন তৈরির উদ্যোগ নেন, তখন বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে তার কাছ থেকে কৌশল রপ্ত করতে ভীড় করেন। নিজ কার্যালয়ে বিতরণের পর ওয়ার্ডের সবগুলো এলাকাতে নিজ উদ্যোগে বাড়ি বাড়ি হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ শুরু হয়।এরপর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। সড়কে নেমে সড়ক ও যানবাহন জীবাণুমুক্ত করতে কাজ করেছেন তিনি। এ ছাড়া এলাকায় এলাকায় জনসচেতনতায় মাইকিং ও নিজের স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে তিনি ফোন পাওয়া মাত্র কোয়ারেন্টিনে থাকা পরিবারগুলোর ঔষধ ও খাদ্য সামগ্রী দিনে রাতে সরবরাহ অব্যাহত রেখেছেন, বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের নিয়ে চালু করেছেন টেলি মেডিসিন সেবাও।

এরই মধ্যে খোরশেদ ঘোষণা দেন, নারায়ণগঞ্জে করোনা উপসর্গ কিংবা আক্রান্ত হয়ে কেউ মৃত্যুবরণ করলে দাফনের ব্যবস্থা করবেন। এরপর থেকেই তিনি একের পর এক লাশের কাফন দাফন সম্পন্ন করে চলছেন। নিজ ধর্মালম্বীদের পাশাপাশি অন্য ধর্মালম্বীদের লাশের সৎকার করে যাচ্ছেন মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

কিন্তু তিনি একবারও চিন্তা করেনি এ করোনা একটি সংক্রামন রোগ। তার পরেও ঘোষণা মোতাবেক পরিবারের মায়া ত্যাগ করে ঝুঁকি নিয়ে লাশ দাফন কাফন করেই চলছেন। যে যাই বলুক, যে যাই করুক তিনি তার কাজে অবিচল রয়েছেন।

২২ এপ্রিল ২১ সৎকার কাজ সম্পন্ন করেন তিনি। গলাচিপা নিবাসী গায়ত্রী দেবী বৈশাখী (৪৮) মুগদা হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। পরে তাকে কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ ও তার দল নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শশ্মানে নিয়ে দাহ করেন। আর এই সৎকারের ছবি নজর কাড়ে বর্হিবিশ্বের এক রাজনীতিকের।

ওই রাজনীতিবিদ হলেন জোরাম জারন ভ্যান ক্লাভেরেন। তিনি একজন ডাচ রাজনীতিবিদ। ফ্রিডম পার্টির সদস্য হিসাবে তিনি ২০১০ সালের ১ জুন থেকে ২০১৪ সালের ২১ মার্চ অবধি নেদারল্যান্ডের একজন সংসদ সদস্য ছিলেন। পরবর্তীকালে ২০১৩ সালের ২৩ মার্চ তাঁর মেয়াাদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনি স্বতন্ত্র পদে ছিলেন। তিনি বর্ণবিভেদলোপকরণ কর্মসংস্থান থেকে জনসংখ্যার সঠিক অনুপাতকরণ, সমতাবাদ, মুক্তি ইত্যাদি বিষয়ে সোচ্ছার ছিলেন। ২০১১ সালের ২৪ মার্চ থেকে ২০১৪ সালের ১১ জুন পর্যন্ত জোরাম জারন ভ্যান ক্লাভেরেন ফ্লেভোল্যান্ডের প্রাদেশিক সদস্য ছিলেন। তিনি মুসলিম বিরোধী মন্তব্যের জন্য সুপরিচিত ছিলেন। ২০১৮ সালের অক্টোবরে তিনি একটি ইসলাম বিরোধী বই লেখার অর্ধেকপথে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

জোরাম জারন ভ্যান ক্লাভেরেন কাউন্সিলর খোরশেদের সৎকারের ছবিটি তিনি তার ফেসবুক প্রোফাইলে শেয়ার করে স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন যার বাংলা অনুবাদ করলে হয় ‘‘এই ছবিগুলি বাংলাদেশ থেকে তোলা হয়েছে, যেখানে হিন্দু কোভিড ১৯ সংক্রামিত ভাই মারা গিয়েছিলেন। তবে তার সম্প্রদায়ের কিংবা পরিবারের কেউই সৎকার কাজে অংশগ্রহণ করেনি। একদল মুসলমান তাঁর সৎকারে আনুষ্ঠানিকভাবে অংশ নিয়ে তা সম্পন্ন করেছিলেন। এটি ইসলামের সম্প্রীতি ও শিক্ষার সত্য লক্ষণ, কিছুদিন আগে আমি ভারত থেকে অনুরূপ সংবাদ পড়েছি।’’

তিনি আরও উল্লেখ করেন,বাংলাদেশ সম্পর্কে আমি বেশি কিছু জানি না। আমি জানি একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ এবং তারা এত ধনী নয়। তবে তাদের হৃদয় সমুদ্রের মতো, যারা প্রায় মিলিয়ন রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় দিয়েছিলেন। আমি এই দেশকে এবং এর জনগণকে সালাম জানাতে চাই। ভারত কি তাদের কাছ থেকে কিছু শিখবে?
স্মপ্রতি নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে তার মানবিক কাজের জন্য ‘‘বীর বাহাদুর’’ উপাধি আখ্যা দিয়েছেন।
মাকসুদুল আলম খন্দকার হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে মৃতদের দাহ এবং দাফনের ব্যবস্থা করছেন। সিটি কর্পোরেশন অঞ্চলের মানুষের নিরাপত্তা ও সেবা প্রদানে সর্বসময় অগ্রনী ভুমিকা রাখবেন এমন প্রত্যাশা সকলের ।